What Is Fast Charging | ফাস্ট চার্জিং কি?

What is Fast Charging | ফাস্ট চার্জিং কি?

What is Fast Charging 🙂 Hello friends how are you all Hope everybody is doing well. আজ আপনাদের সাথে আলোচনা করব মোবাইলে ফাস্ট চার্জিং নিয়ে।

আমার ফোন তো ফাস্ট চার্জিং সাপোর্টেট না কিন্তু আমি যদি আমার ফোনে ফাস্ট চার্জার লাগিয়ে দেই তাহলে কি তাড়াতাড়ি ব্যাটারি ফুল হবে?

এই প্রশ্নের উত্তর নিয়েই আজকে হাজির হয়েছি নতুন একটি পোস্টে। এই আর্টিকেলে আপনাদের জানাবো- যে প্রশ্নগুলো আপনারা লজ্জায় হয়ত কাউকে বলতে পারেন না কারণ আপনি মনে করেন এটার উত্তর তো একটি ছোট বাচ্চাও জানে!

সো আমার আজকের পোস্টে আপনাদের জানাবো স্মার্টফোনের ফাস্ট চার্জার সম্পর্কে।

  • ফাস্ট চার্জিং কি?

  • ফাস্ট চার্জিং এর টুকিটাকি/ইতিহাস?

  • চার্জিং ওয়াট কি?

  • ফাস্ট চার্জিং এর ক্ষতি?

  • ফাস্ট চার্জিং এর নামের ভিন্নতার কারণ?

What is fast charging? – ফাস্ট চার্জিং কি?

What Is Fast Charging | ফাস্ট চার্জিং কি?
What Is Fast Charging | ফাস্ট চার্জিং কি?

যাইহোক নাম থেকেই বুঝতে পারছেন যে, যে জিনিস টা স্মার্টফোনকে তাড়াতাড়ি চার্জ করে তাকেই ফাস্ট চার্জার বলে কিন্তু না, এখানেই শেষ নয়! কারণ একেকটা কোম্পানি ফাস্ট চার্জার কে একেক নামে ডাকে।

কেউ বলে বুক চার্জার, কেউ বলে ওয়াপ চার্জার, আবার কেউ বলে অ্যাডাপ্টার ফাস্ট চার্জার, কেউ অনেকেই বলে থাকেন কুইক চার্জার।

এই যে ডিফারেন্ট ডিফারেন্ট নাম এগুলো দিয়ে মূলত কি বোঝায়? একচুয়ালি ফাস্ট চার্জিং এর প্রকৃত মানে কি? এই ধরণের বেসিক কিছু প্রশ্নের উত্তর আপনাদের সাথে শেয়ার করব।

ফাস্ট চার্জিং বা দ্রুত চার্জ করার বিষয়টা শুরু হয় ২০১৩ সালে, যখন কোয়ালকম তাদের একটি নতুন টেকনোলজি রিভিউ করে যার নাম হচ্ছে কুইক চার্জ ওয়ান এবং এটা ছিল ১০ ওয়াটের একটি চার্জার।

চার্জিং ওয়াট কি?

এর পূর্ববর্তী যে চার্জারগুলো ছিল সেগুলো হয়তো 5 ওয়াটের ছিল বা আরেকটু বেশি ছিল। কিন্ত যখন 10 ওয়াটের চার্জার আসলো তখন ফোনগুলো  আরও দ্রুত চার্জ হতে শুরু করল এবং তখনই শুরু হলো ফাস্ট চার্জিং এর কাহিনী।

আমি যে 10 ওয়াট বা 5 ওয়াট বললাম সেগুলো আসলে কি? আপনি যখন কোন চার্জার দেখবেন; চার্জারের গায়ে খেয়াল করবেন যে লেখা থাকে- INPUT:100V-240V-50/60Hz বা OUTPUT:DC5V=1.5A মানে ভোল্ট বাই এম্পিয়ার এরকম লেখা থাকে।

সো বেশিরভাগ চার্জারে দেখবেন লেখা থাকে 5 volt than 1A,2A. শুরুতেই ভোল্টের যে পরিমাণটা  থাকে তা M, মানে হচ্ছে 1M এটা হচ্ছে Max Current Output. আপনি যদি এ দুটিকে গুণ দেন তাহলে বের হয়ে আসবে আপনার চার্জারটি কত ওয়াটের।

ধরুন, একটি চার্জার হচ্ছে 5 ওয়াট এবং 2 এম্পিয়ার তার মানে চার্জারটি 5×2=10 ওয়াটের। অথবা এরকম হতে পারে 9ভোল্ট এবং 2 অ্যাম্পিয়ার, তাহলে 9×2=18 ওয়াটের চার্জার হবে।

এখন কথা হলো ওয়াট কমবেশির ফলাফল কি? সহজ কথা- ওয়াট যত বেশি হবে চার্জের স্পীড তত বেশি হবে।

এখন কথা হলো যদি 25 ওয়াটের একটি ফাস্ট চার্জার যেকোন একটি স্মার্টফোনে লাগিয়ে দিলে কাজ করবে কিনা? না কাজ করবেনা কারণ হচ্ছে সেই স্মার্টফোনেও ধারণ ক্ষমতা থাকতে হবে 25 ওয়াটের রিসিভ করার মত।

চার্জিং ওয়াট কি - What is a charging watt
চার্জিং ওয়াট কি – What is a charging watt

স্মার্টফোনের ভেতরে যে সার্কিট এবং ব্যাটারি থাকে সেইটা এই পাওয়ারটাকে গ্রহণ করার মত অ্যাবিলিটি রাখতে হবে। যেই ফোনটি ফাস্ট চার্জিং সাপোর্টেট না, সেই ফোনে আপনি ফাস্ট চার্জার লাগালেও কোন লাভ হবেনা।

ফাস্ট চার্জিং এর ক্ষতি?

এখন কথা হচ্ছে কোন স্মার্টফোন ফাস্ট চার্জিং সাপোর্টেট না হওয়া সত্ত্বেও যদি এরকম করে যদি  ফাস্ট চার্জার লাগানো হয় তাহলে ঐ ফোনটির  কোন ক্ষতি হবে কিনা?

এটা সাধারণ মোবাইলের ক্ষতি করেনা কারণ মোবাইলের মধ্যে একটা টেকনোলজি থাকে, ততটুকুই গ্রহণ করবে যতটুকু তার প্রয়োজন।

চার্জার যতই সাপ্লাই দিক, মোবাইল তার ক্ষমতা অনুযায়ী নিবে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সমস্যা হয়না তবে মোবাইল কোম্পানিগুলো বলে থাকেন চার্জার মেসিং করে চার্জ দিতে।

পারটিকুলার অনুযায়ী চার্জার ব্যবহার করাই রেকমান্টেড। তবে অনেক সময় চার্জার এবং ব্যাটারির ভিন্নতার কারনে সমস্যা হতে পারে যেমন চার্জার বা ব্যাটারি গরম হওয়া বা ফুলে যাওয়া, ব্লাস্ট হওয়া।

ফাস্ট চার্জিং এর টুকিটাকি/ইতিহাস?

আরেকটি কথা আগেই বলেছি, একেক কোম্পানি একেক নামে ডাকে এর মানে কি? একচুয়ালি  টেকনোলজিটা একই এবং কোয়ালকম যেহেতু এটাকে তারা কুইক চার্জ নামে তাদের ব্র্যান্ডিং করেছে।

কুইক চার্জ 1 এরপর আসছে 2,3,4 কোয়ালকম যেহেতু এটাকে ব্র্যান্ডিং করে ফেলেছে এই কারণে অন্য কোম্পানি গুলো বিভিন্ন নামে ডাকে।

যেমন স্যামসাং বলে অ্যাডাপ্টার চার্জার আবার অপ্পো বলে বুক চার্জার এবং ওয়ানপ্লাস বলে ওয়াপ চার্জার।

আসলে টেকনোলজি টা একই কিন্তু একেক কোম্পানি একেকভাবে নামকরণ করেছেন।

আশা করি আপনারা স্মার্টফোনের ফাস্ট চার্জিং সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন, ফাস্ট চার্জিং জিনিসটা আসলে কি! এরপরেও যদি আপনাদের মনে কোন প্রশ্ন থেকে থাকে।

তাহলে আমাদের কমেন্টে জানাবেন অথবা ফেসবুক পেইজে মেসেজ করতে পারেন। চেষ্টা করবো পরবর্তীতে আরও এই বিষয়ে আর্টিকেল শেয়ার করতে।

পোস্টটি ভালো লাগলে বন্ধুদের শেয়ার করে জানিয়ে দিন !!

Admin

Hi, I am Jahangir Alam. An employee and businessman by profession. I have been using the internet since 2011 and doing various things in the online world. I love writing and blogging so much so I created this blog for myself (www.offercornerbd.com). And I will share all my knowledge with you in this blog.

View all posts by Admin →

Leave a Reply

Your email address will not be published.